Blog

Learn Cardiology Easily

🔷 Blood pressure:
Blood হচ্ছে আমাদের শরীরের প্রতিটি কোষে পুষ্টি সরবরাহকারী উপাদান।
Blood শরীরের মধ্যে কিছু চিকন পাইপের মতো নালিকা দিয়ে সারা শরীরে প্রবাহিত হয়। নালিকাগুলোকে blood vessel বলা হয়। সব গুলি blood vessels এর উৎপত্তিস্থল হচ্ছে heart, heart থেকে blood vessels সমূহ সারা শরীরে প্রবাহিত হয়। Heart কে যদি আমরা একটি মোটর পাম্পের মত কল্পনা করি, তাহলে blood vessel সমূহ হচ্ছে মোটর পাম্পের মুখে আটকানো ডেলিভারি পাইপের মতো।
মোটর পাম্পের মুখে আটকানো ডেলিভারি পাইপ দিয়ে যেমন বাগানে পানি দেওয়া হয়, তদ্রুপ heart নামক পাম্প দিয়ে সারা শরীরে রক্ত সরবরাহ করা হয়। যেখানে heart, pumping machine হিসাবে কাজ করে, blood vessel সমূহ ডেলিভারি পাইপের মতো কাজ করে।
একজন মানুষের blood vessel সমূহ যদি পাশাপাশি রেখে জোড়া লাগানো হয়, তাহলে তা এক লক্ষ কিলোমিটার দীর্ঘ হবে। একজন প্রাপ্ত বয়স্ক মানুষের শরীরে প্রায় ৫ লিটার blood থাকে এবং এই ৫ লিটার blood মাত্র এক মিনিটে heart থেকে blood vessel হয়ে সারা শরীর ঘুরে আবার heart এ আসে।

🔷 Heart beat:
মোটর পাম্প যেমন বিদ্যুৎ দিয়ে চালু করলে তাতে
কিছু ছোট চাকার ঘূর্ণনের ফলে পানি উঠে আসে,
তদ্রুপ heart নামক পাম্পিং যন্ত্র টা প্রতি মিনিটে
প্রায় গড়ে ৭৫ বার করে প্রকম্পিত হয়, তথা ৭৫ বার heart অটোমেটিক ভাবে সামনের দিকে ধাক্কা খায়, আবার পিছনে ফিরে আসে, অর্থাৎ একবার সংকোচিত হয়, আর এক বার সম্প্রসারিত হয়, যাকে heartbeat বলে। এই ধাক্কার ফলে heart এর ভিতরের রক্ত সমূহ blood vessel এ প্রবেশ করে, আবার অন্য blood vessel দিয়ে heart এ ফিরে এসে।

🔷 Blood pressure:
Heart থেকে রক্তসমূহ যখন blood vessel এ আসে, তখন blood vessel এ চলাচলের সময় blood, vessel এর গায়ে এক ধরনের চাপ তথা pressure প্রয়োগ করে, একেই blood pressure বলা হয়। যেমন, মোটর পাম্প থেকে পানি যখন ডেলিভারি পাইপে আসে, তখন পাইপ গুলি আমরা হাতে নিলে পানির একটি প্রেশার পাই, ঠিক তদ্রুপ blood vessel এ রক্তসমূহ একটি প্রেশার প্রয়োগ করে তাকে blood pressure বলে।
একটি মোটর পাম্প যদি পর্যাপ্ত ইলেক্ট্রিসিটি পেয়ে
একই সমান্তরাল ভাবে চলতে থাকে এবং ডেলিভারি
পাইপ যদি পরিষ্কার থাকে, কোথাও যদি কোন প্রতিবন্ধকতা না থাকে, তাহলে পানির পাম্পিং আর প্রবাহ স্বাভাবিক থাকবে, ঠিক তদ্রুপ heart যদি সুস্থ থাকে, আর blood vessel সমূহে যদি কোন প্রতিবন্ধকতা না থাকে, তাহলে রক্ত চলাচল স্বাভাবিক থাকবে, রক্ত চলাচল করতে বাড়তি প্রেশার লাগবেনা।

🔷 High pressure:
তবে blood vessel সমূহ যদি ক্লিয়ার না থাকে, তথা সেখানে যদি চর্বি (Cholesterol) জমা হয়, কিংবা heart এর পাম্পিং ক্ষমতা যদি বেড়ে যায়, তাহলে blood vessel এ রক্তসমূহ চলাচলের সময় একটি বাড়তি প্রেশার অনুভব করবে। যথা মনে করি, heart এর পাম্পিং ক্ষমতা মিনিটে ৫ লিটার blood, এখন যদি body-তে blood আর অতিরিক্ত ফ্লুইড জমা হয়ে যায়, তাহলে বেশী ফ্লুইড একই সময়ে blood vessel এ স্বাভাবিক ভাবে পরিবাহিত হবার সময় রক্ত চলাচলের স্বাভাবিক প্রক্রিয়া বাঁধাগ্রস্ত হবে এবং রক্ত সঠিক পরিবহনের জন্য একটি বাড়তি প্রেশার লাগবে, যাকে high pressure কিংবা উচ্চচাপ বলা হয়। রক্তের এই প্রেশার গুলি প্রেশার পরিমাপক যন্ত্র Sphygmomanometer দিয়ে পরিমাপ করা হয়।

Heart সংকোচনের (systole) সময় স্বাভাবিক প্রেশার থাকে 100-120 mmHg।

আর heart সম্প্রসারণের সময় স্বাভাবিক প্রেশার থাকে 60-90 mmHg।

এখন কারো ক্ষেত্রে যদি এই প্রেশারে তারতম্য ঘটে,
তথা প্রেশার যদি 140/90 এর উপরে চলে যায়,
তাহলে ইহাকে high pressure বলা হয়, যার
অপর নাম হচ্ছে Hypertension।

High pressure এর কারণ সমূহ:

Fig : Causes of Hypertension.


১। Olg age বা বয়স্কদের হাইপ্রেশার এর চান্স বেশি, কারণ বয়স বাড়ার সাথে সাথে blood vessel গুলি গাড় কিংবা শক্ত হতে থাকে, তাই সেই vessel দিয়ে রক্ত চলাচলের স্বাভাবিক চাপ বেড়ে যায়, যাকে high pressure বলে।
২। মহিলাদের তুলনার পুরুষদের রক্তচাপ বেশি থাকে।
৩। Genetic তথা ফেমিলিগত কারণে অনেকের high pressure থাকে, তাদের heart এর আউটপুট বেশি থাকে এবং high pressure হয়।
Age, sex and Genetic এই তিনটা কারণের মধ্যে আমাদের কোনো হাত থাকে না কিংবা আমরা চাইলেও এইটা পরিবর্তন করতে পারি না, এই জন্য এই তিনটা কারণ কে Non Modifiable Risk factor for Hypertension বলে।

Hypertension এর আরো কিছু কারণ আছে, যাকে ইচ্ছা করলে আমরা নিয়ন্ত্রণ করতে পারি, তাকে Modifiable risk factor for Hypertension বলে।

নিম্নে একটা তালিকা দেওয়া হলো, এইসব কারণে যদিও high pressure হয়, তবে তা নিয়ন্ত্রণ করা আমাদের পক্ষে সম্ভব-
১। ধূমপান, কারণ হচ্ছে সিগারেট এর মধ্যে নিকোটিন নামক এক প্রকার ক্ষতিকর রাসায়নিক পদার্থ থাকে, যা LDL cholesterol নামক একপ্রকার চর্বিকে blood vessel এ আটকে রাখে, এতে করে blood vessel সমূহ সরু হয়ে যায়, শক্ত হয়ে যায়, elasticity কমে যায় এবং রক্ত সঞ্চালনে বাধাগ্রস্ত হয়, যার কারণে রক্তচাপ বেড়ে যায়।
২। অতিরিক্ত চর্বিজাতীয় খাবার গ্রহণ যথা, গরুর গোস্ত, খাঁসি, হাঁস, তৈলাক্ত খাবার, ডিম ইত্যাদি। এতে করে রক্তে কোলেস্টেরল কিংবা চর্বি এর পরিমাণ বৃদ্ধি পায় এবং তা blood vessel এর গায়ে জমা হয়ে vessel সরু হয় এবং রক্ত সঞ্চালনে বাধাগ্রস্ত হয়।
৩। অ্যালকোহল গ্রহণ
৪। মানসিক চাপ
৫। অতিরিক্ত শারীরিক ওজন
৬। বংশগত কারণ
৭। বয়স (৫৫ বছর পুরুষ) (৪০ বছর মহিলা)
৮। তামাক, জর্দা, চুন
৯। খাবারে অতিরিক্ত লবণ
১০। কিছু hormonal কারণ
১১। kidney disease
১২। Hyperthyroidism
১৩। Cushing syndrome
১৪। Atherosclerosis disorder

Hypertension এর প্রকারভেদ, উপসর্গ, জটিলতা, প্রতিকার:

উপরে আমরা জেনেছি, যদি রক্তচাপ ১৪০/৯০ mmHg এর বেশি হয়, তবে তাকে high blood pressure হিসাবে চিহ্নিত করা হয়।

High pressure বা Hypertension-কে আবার তিনটি Grade এ ভাগ করা হয়,

Fig : Grades of Hypertension.

✔ Grade 1:
যদি systolic pressure 140-159 mmHg
আর diastolic pressure যদি 90-99 mmHg হয়, তবে এইটা Grade 1 Hypertension, যাকে mild hypertension ও বলা হয়।

✔ Grade 2 বা moderate hypertension:
যদি systolic pressure 160-179 mmHg
আর diastolic pressure যদি 100-109 mmHg হয়, তবে এইটাকে Grade 2 Hypertension বা moderate hypertension বলে।

✔ Grade 3 বা severe hypertension:
যদি systolic/ diastolic pressure 180/110 mmHg এর উপরে হয়, তবে তাকে severe hypertension বলে। এইটাকে Hypertensive crisis ও বলে, malignant hypertension বা hypertensive emergency নামেও চিহ্নিত করা হয়।
এই প্রকার hypertension খুবই খারাপ, দ্রুত নিয়ন্ত্রণে আনতে না পারলে heart attack , brain stroke এর ঝুঁকি বৃদ্ধি পায়।

উচ্চরক্তচাপ বা High pressure এর উপসর্গ:
১। মাথা ব্যথা
২। ঘাড় ব্যথা, সাধারণত বাম পাশে বাম বাহু থেকে উপরের দিকে ঘাড়ে ব্যথা করবে
৩। চোখে ঝাপসা দেখা
৪। বুকে ব্যথা
৫। মাথা ঘোরানো
৬। নাক দিয়ে রক্ত পড়া
৭। শ্বাসকষ্ট হওয়া
৮। বুক ধড়পড় করা
৯। অবসাদ লাগা
১০। ঘুম কম হওয়া

Fig : Symptoms of hypertension.

জটিলতা:
High pressure এর সবচেয়ে বড় জটিলতা হচ্ছে heart attack এবং brain stroke। প্রায় প্রতি বছর গ্লোবাল ডেথ এর ৩৩% heart attack কিংবা brain stroke করে মারা যায়, যাদের অনেকেই Undiagnosed থাকে, তাদের যে high pressure ছিলো, তাও তাদের জানা থাকেনা, তাই দেখা যায়, হঠাৎ করে বুকে ব্যথা উঠে পড়ে যায় এবং কয়েক ঘন্টার মধ্যে মারা যায়।

অন্যান্য জটিলতা:
১। বুকে অসহনীয় ব্যথা
২। Chronic kidney disease
৩। Vascular disease ইত্যাদি।

প্রতিরোধ:
১। ধূমপান থেকে বিরত থাকা।

২। অতিরিক্ত চর্বিযুক্ত খাবার থেকে বিশেষ করে গরুর গোশত খাবার থেকে বিরত থাকা

৩। লবণ কম খাওয়া

৪। BMI ২৪ এর মধ্যে রাখা তথা ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখা।

৫। নিয়মিত ব্যায়াম করা

৬। প্রচুর শাকসবজী খাওয়া বা ফাইবার খাওয়া

৭। কাঁচা ফলমূল খাওয়া।

৮। ডায়াবেটিস থাকলে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখা।

Ismail Azhari
Dhaka Community medical college
Session: 2013-14

Platform academic/ Diluwara Yasmin Priya

Leave a Reply